চলতি মাসেই আসছে কালবৈশাখী

3

ঢাকা অফিস

বাড়তে শুরু করেছে তাপমাত্রা। একইসঙ্গে চলতি মাসের মাঝামাঝি থেকে শুরু হবে বৃষ্টি, শিলাবৃষ্টি, কালবৈশাখী ঝড়। চলতি মাসে ১-২টি মাঝারি থেকে বড় ধরনের কালবৈশাখী ঝড় এবং ২-৩ টি শিলাবৃষ্টি এবং ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্র বৃষ্টি হতে পারে।

আবহাওয়াবিদ আব্দুল মান্নান বলেন, ‘চলতি মাস থেকেই বাড়তে শুরু করবে তাপমাত্রা। এই সময় এই ধরনের আবহাওয়া স্বাভাবিক। তাপমাত্রা বাড়লে আবহাওয়ায় পরিবর্তন ঘটে। এই সময়ে কালবৈশাখীর দেখা পাই আমরা। চলতি মাসের শেষে এক থেকে দুটি কালবৈশাখী ঝড় হতে পারে। এছাড়া মাঝামাঝি সময়ে কোথাও কোথাও শিলা বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।’

আবহাওয়ার দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাসে বলা হয়, চলতি মাসে স্বাভাবিক অপেক্ষা কম বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। এ মাসে উত্তর, উত্তর-পশ্চিম ও মধ্যাঞ্চলে ১-২ দিন বজ্র ও শিলাবৃষ্টিসহ মাঝারি ধরনের বা তীব্র কালবৈশাখী ঝড় এবং দেশের অন্য এলাকায় ২-৩ দিন বজ্র ও শিলাবৃষ্টি সহ হালকা বা মাঝারি ধরনের কালবৈশাখী ঝড় হতে পারে।

তাপমাত্রার বিষয়ে বলা হয়, এ মাসের দিনের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা বেশি থাকতে পারে। এই তাপমাত্রা ৩৪-৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস হতে পারে। তবে রাতের তাপমাত্রা স্বাভাবিক অবস্থায় থাকতে পারে। সেইসঙ্গে মাসের শেষ দিকে পশ্চিম ও উত্তর পশ্চিমাঞ্চলে ১-২টি মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। সে সময় তাপমাত্রা ৩৬-৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত উঠতে পারে।

মঙ্গলবার (২ মার্চ) দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা যশোরে ৩৫.২ আর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা তেঁতুলিয়ায় ১৪. ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এছাড়া বিভাগীয় শহরগুলোর মধ্যে ঢাকায় আজ সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৩. ৫, ময়মনসিংহে ৩১. ৭, চট্টগ্রামে ৩০.২, সিলেটে ৩২.৫, রাজশাহীতে ৩৫, রংপুরে ৩১.৫, খুলনায় ৩২. ৫ এবং বরিশালে ৩৩.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।

তাপমাত্রার বিষয়ে আবহাওয়াবিদ আব্দুল হামিদ বলেন, ‘এখনও তাপমাত্রা খুব বেশি বাড়েনি। ৫ তারিখ পর্যন্ত তাপমাত্রা একই থাকবে এবং আবহাওয়া একই রকম থাকবে। এরপর ৬ বা ৭ তারিখ ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি হতে পারে। আবার তাপমাত্রা বাড়তে শুরু করবে। মাসের শেষদিকে কোথাও কোথাও তাপপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। এ সময় তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি পর্যন্ত উঠতে পারে।